Templates by BIGtheme NET
Home » অপরাধ » কুষ্টিয়া মিরপুরের গোপিনাথপুর গ্রামে অবৈধভাবে কুমারনদী দখল করে মাছচাষ, প্রসাশন নির্বিকার

কুষ্টিয়া মিরপুরের গোপিনাথপুর গ্রামে অবৈধভাবে কুমারনদী দখল করে মাছচাষ, প্রসাশন নির্বিকার

ডেস্ক নিউজ:

 

কুষ্টিয়া মিরপুরের গোপিনাথপুর গ্রামের আব্দুল হামিদ দিন-দিন বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিনের নাম ভাঙ্গিয়ে। তার আওয়ামীলীগ এ কোন পদ-পদবী নেই এমনকি দলে প্রাথমিক সদস্য পদ ও নেই। সে মিরপুরের মালিহাদ ইউপির ফুলবাড়ি ব্রীজ থেকে গোপিনাথপুর আবাসনের শেষ পর্যন্ত নদীর মাঝে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করে চলেছে। এলাকাবাসী পাট জাগ থেকে শুরু করে গরুর গা ধোয়ানো কোন কিছুই করতে পারছে না। অথচ কুমারনদীর আব্দুল হামিদ এর দখলকৃত অংশ ছাড়া একই নদীর অন্য অংশগুলোতে পাট জাগ দিতে দিচ্ছে। শুধুমাত্র আব্দুল হামিদ পাট জাগ দিতে দিচ্ছে না। মিরপুরের গোপিনাথপুর গ্রামের আমির চাদ এর ছেলে আজিবার পাট জাগ দিলে তার পাট উপরে উঠিয়ে রাখে এবং সরিয়ে নিতে বললে আজিবার সেগুলো সরিয়ে বাধ্য হয়। মিরপুরের গোপিনাথপুর গ্রামের আহাম্মদ এর ছেলে আসাদুল পাট জাগ দিলে তার পরিবারের সদস্যদের উপরে চলে স্টীম রোলার। আব্দুল হামিদ আসাদুলের বাড়িতে তাকে মারার জন্য আসে।

আসাদুলকে বাড়িতে না পেয়ে তার স্ত্রীর চুল ধরে টেনে মেরেই ক্ষান্ত হয়নি বরং তার অসুস্থ পিতা বাড়ির পাশে সিরাজুলের দোকানের মাচায় অবস্থান করছিল, সেখান থেকে তাকে গলায় গামছা বাধিয়ে মাচা থেকে নামিয়ে প্রহার করতে থাকে। অসুস্থ মুরুব্বীর চিৎকারে কেউ এগিয়ে আসার সাহস পায়নি আব্দুল হামিদের ভয়ে। আব্দুল হামিদ তার পিতার বয়সি মানুষটিকে প্রহার করতে থাকলে, লোকটি ঐ জায়গায়ই পায়খানা ফিরে ফেললে আব্দুল হামিদ চলে যায়। সবাই এই বিষয়টিকে তীব্র ঘৃণার চোখে দেখলেও কেউ এই গ্রামে মুখ খোলার সাহস পাচ্ছে না আব্দুল হামিদের ভয়ে। আহাম্মদ (৭০) নামের আহত অসুস্থ মুরুব্বির বাড়ি কুষ্টিয়া মিরপুরের মালিহাদ ইউপি এর গোপিনাথপুর গ্রামে। মুরুব্বী ও তার ছেলের বৌ নির্যাতনের শিকার হলে থানায় অভিযোগ অথবা মামলা কোনটা করার সাহস পাচ্ছে না, এমনকি মুখ খোলার সাহস পর্যন্ত পাচ্ছে না। ফলে পাট চাষীরা পাট চাষের আগ্রহ সম্পূর্ণরুপে হারিয়ে ফেলছে। গোপিনাথপুর পাটচাষীরা আগামী বছরগুলোতে পাট চাষ করবে না বলে জানিয়েছেন অনেকেই । তাছাড়াও একটু বৃষ্টি বেশী হলেই জমিতে পানি জমে যায় যা বের হচ্ছে না নদীতে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করার কারণে।

Facebook Comments Box