Templates by BIGtheme NET
Home » জেলার খবর » কুমারখালীতে জামাইয়ের বিরুদ্ধে শশুড়ের চুরির চেষ্টার মামলা

কুমারখালীতে জামাইয়ের বিরুদ্ধে শশুড়ের চুরির চেষ্টার মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধি:

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে সদ্য বিবাহিত স্বামী মোবাইলে স্ত্রীর ম্যাসেজ পেয়ে দেখা করতে গিয়ে শশুড় বাড়ির লোকদের হাতে গণপিটুনির শিকার হয়েছেন। এবং পরবর্তিতে জামাইয়ের বিরুদ্ধে শশুড় চুরির চেষ্টার মামলা করেছেন। ঘটনাটি রোববার রাত ১ টার দিকে জগন্নাথপুর ইউনিয়নের হোগলা গ্রামে ঘটেছে।

 

ভুক্তভোগী জামাই জগন্নাথপুর ইউনিয়নের জোতপাড়া গ্রামের মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে জাকারিয়া। তিনি অনার্স শেষ বর্ষে রাজবাড়ী সরকারী কলেজে কেমিস্ট্রি বিষয়ে অধ্যায়নরত।

 

ভুক্তভোগী ছেলের চাচা রবিউল ইসলাম জানান, তার ভাতিজার সাথে একই ইউনিয়নের হোগলা গ্রামের খলিলুর রহমান মাস্টারের মেয়ের প্রেমজ সম্পর্ক ছিলো। যেকারণে দুই বছর আগে মেয়ের বাবা তার ভাতিজাকে মারধর করে। মাঝখানে তাদের মধ্যে সম্পর্ক ছিলো না কিনা সেটা তাদের জানা নেই। হটাৎ জানতে পারেন চলতি মাসের ২৪ তারিখে ছেলে মেয়ে গোপনে কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করে যে যার বাড়িতে অবস্থান করছে। এবং রোববার রাত ১ টার দিকে মোবাইলে ম্যাসেজ পেয়ে তার ভাতিজা মাস্টারের মেয়ের সাথে দেখা করতে গেলে খলিল মাস্টার, তার চাচাত ভাই লালনসহ ৪/৫ জন মিলে ঘরের মধ্যে আটকে তার ভাতিজাকে হাতুড়ি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারপিট করে। এসময় তার ভাতিজা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়লে খলিল মাস্টারের ছোট ভাই জয়নাল আবেদীন তাদেরকে ফোন দিয়ে জানায় তাদের মেয়ের ঘরে জাকারিয়া ঢুকেছিলো যেকারণে তাকে পুলিশে দেয়া হচ্ছে। রবিউল ইসলাম আরো জানান খলিল মাস্টারের লোকজন তার ভাতিজার মাথায় ও হাঁটুতে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়েছে যেকারণে মাথায় ৭ টি সেলাই দেয়া হয়েছে। এবং স্বামী স্ত্রী হওয়া সত্বেও তার ভাতিজার বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় চুরির চেষ্টার মামলা দেয়া হয়েছে।

 

এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, রাত ১ টার দিকে খলিল মাস্টারের বাড়িতে অনধিকার প্রবেশের জন্য তারা ঐ ছেলেকে ধরে মারপিট করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পরবর্তীতে ছেলেটির বিরুদ্ধে চুরির চেষ্টার মামলা হয়েছে।

Facebook Comments Box